ব্যবসা ও অর্থনীতি

অস্থির বিশ্ব পুঁজিবাজারের আরেক কারণ

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বিশ্ব অর্থনীতিকে স্থবির করে দেবে—এমন আশঙ্কায় সম্প্রতি বিশ্ব পুঁজিবাজারে ব্যাপক ধস নামে। তবে বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, বিনিয়োগকারীদের আশঙ্কা কেবল করোনাভাইরাস নিয়ে নয়, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিও খোঁচাচ্ছে তাঁদের।

আগামী নভেম্বরে মার্কিন জাতীয় নির্বাচন হওয়ার কথা। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পুনর্নির্বাচন করবেন—এটির বিষয়ে এখন পর্যন্ত নিশ্চিত যুক্তরাষ্ট্রের পুঁজিবাজার ওয়ালস্ট্রিট। গোল্ডম্যান স্যাসে, ডয়েচে ব্যাংকেরসহ অনেক জরিপে বিপুলসংখ্যক বিনিয়োগকারী তাঁর জয়ের পূর্বাভাসই দিয়েছেন। তবে করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনৈতিক মন্দার ঝুঁকি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এসব পূর্বাভাস কতটা বাস্তব হবে, তা নিয়েও সন্দেহ তৈরি হয়েছে। বিনিয়োগকারীরা ডেমোক্রেটিক কাউকে বিকল্প পছন্দ করছেন না। আর এসবের কারণে গত দুই সপ্তাহে ব্যাপক দরপতন দেখেছে ওয়ালস্ট্রিট।

যুক্তরাষ্ট্রের পুঁজিবাজার বিশ্লেষক লি ফেরিজ বলেন, কয়েক সপ্তাহ আগে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী কে হবেন, সে সম্পর্কে কোনো উদ্বেগ ছিল না, কারণ প্রত্যাশা ছিল যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পুনরায় নির্বাচিত হবেন। এখন উদ্বেগের বিষয় হলো, যদি যুক্তরাষ্ট্র মন্দার দিকে যায় বা বিশ্ব অর্থনীতির গতি উল্লেখযোগ্য হারে কমে…তখন একজন বামপন্থী প্রার্থীর জন্য দরজা খুলে যাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে…এবং অবশ্যই দীর্ঘ মেয়াদে তা বাজারে প্রতিক্রিয়া দেখাবে। ওয়ালস্ট্রিট ট্রাম্প প্রশাসনকে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা-বাণিজ্যবান্ধব প্রশাসন হিসেবে দেখছে। অনেক কিছুর করহার কমানোয় এবং স্বাস্থ্যসেবা, ব্যাংকিং, পরিবেশ ও শ্রমবাজারে মতো ক্ষেত্রে কিছুটা নিয়ন্ত্রণ নেওয়ায় বিনিয়োগকারীরা ট্রাম্প প্রশাসনের ওপর খুশি।

এখনো কে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়বেন, তা নির্বাচিত হয়নি। তবে যাঁরা প্রার্থিতার জন্য লড়ছেন, তাঁরা প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন; বিশেষ করে স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে। সাম্প্রতিক সময়ে এ খাতের শেয়ারের দামেই অস্থিরতা দেখা যাচ্ছে।

ফেরিজ বলছেন, বিনিয়োগকারীরা আশঙ্কা করছেন যে প্রেসিডেন্ট হলে কংগ্রেসে রিপাবলিকানদের দ্বারা স্যান্ডার্সের প্রস্তাব বাতিল হলেও হয়তো তিনি নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে পরিবর্তনের করতে সক্ষম হবেন, এমনটাই সাধারণত হয়ে আসছে। এর মধ্যে সাবেক সিনেটর জো বাইডেন, যিনি ওবামা প্রশাসনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন, তিনিও প্রার্থিতার দৌড়ে এগিয়ে আসছেন। এ সবকিছু বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বছরজুড়েই উদ্বেগ তৈরি করবে।

গত মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাছাইয়ের লড়াইয়ে শক্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন দেশটির সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। একযোগে ১৪টি রাজ্যের প্রাইমারি নির্বাচনে অংশ নেন ডেমোক্র্যাট সদস্যরা। ‘সুপার টুয়েসডে’র মহা লড়াইয়ে নয়টি রাজ্যেই জিতেছেন বাইডেন। তবে সবচেয়ে বেশি ডেলিগেট রয়েছে যে রাজ্যটিতে, সেই ক্যালিফোর্নিয়াসহ চারটিতে জিতেছেন বার্নি স্যান্ডার্স। এর প্রভাবে গতকাল বুধবার ঊর্ধ্বমুখী ছিল দেশটির পুঁজিবাজার। ডাও জোনস, এসঅ্যান্ডপি ৫০০ ও নাসডাক—তিনটি সূচকই ঊর্ধ্বমুখী ছিল।

Leave a Comment