আন্তর্জাতিক

তালেবানের ওপর মার্কিন বিমান হামলা

আফগান বাহিনীকে রক্ষার জন্য আজ বুধবার তালেবান জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বিমান হামলা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র এসব কথা জানান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানদের মধ্যে শান্তি আলোচনার মধ্যেই গতকাল মঙ্গলবার থেকে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে তালেবান জঙ্গিদের সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

গত ১১ দিন পর দক্ষিণ হেলমান্দ প্রদেশে বিমান হামলার কথা জানিয়েছেন মার্কিন সেনাবাহিনী। এর আগে তালেবান রাজনৈতিক প্রধানের সঙ্গে আলোচনাকে খুব ভালো আলোচনা বলে মন্তব্য করেছিলেন ট্রাম্প। আফগানিস্তানে দীর্ঘ দেড় যুগের সহিংসতা বন্ধ করে দেশটিতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে এক ঐতিহাসিক চুক্তিতে স্বাক্ষর করে যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবান।

প্রায় দুই বছর ধরে আলোচনার পর গতকাল শনিবার কাতারের রাজধানী দোহায় এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

তবে দোহায় চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার পর থেকে তালেবানরা আফগান বাহিনীর বিরুদ্ধে সহিংসতা বাড়িয়েছে এবং এক সপ্তাহের আংশিক যুদ্ধবিরতি শেষ করেছে।

ইউএস ফোর্সেস-আফগানিস্তানের মুখপাত্র সনি লেগেট টুইট করেছেন, ‘হেলমান্দ প্রদেশে আফগান বাহিনীর একটি চৌকিতে সক্রিয়ভাবে আক্রমণকারী তালেবান যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এই বিমান হামলা করা হয়েছিল। তবে এটা প্রতিরক্ষামূলক হামলা। আমরা তালেবানদের অপ্রয়োজনীয় সংঘাত এড়াতে আহ্বান জানিয়েছি এবং প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে বলেছি। আমাদের সহযোগীদের প্রয়োজনে আমরা সুরক্ষা দেব। শুধু মঙ্গলবারে হেলমান্দে ৪৩টি চেকপয়েন্টে হামলা চালানোর ঘটনা ঘটেছে।’

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, আফগানিস্তানের কুন্দুজে কমপক্ষে তিনটি সেনাচৌকিতে হামলার ঘটনায় অন্তত ২০ সেনা ও পুলিশ নিহত হয়েছে। ইমাম সাহিব জেলায় এসব হামলা চালানো হয়।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে বিদ্রোহী জঙ্গিরা কেন্দ্রীয় উরুজগান রাজ্যে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। গভর্নরের মুখপাত্র জেরগাই এবাদি এএফপিকে বলেছেন, দুর্ভাগ্যবশত ওই হামলায় ছয় পুলিশ সদস্য নিহত ও সাতজন আহত হয়েছে।

Leave a Comment